শেষ বলে ৪ মেরে আবারও কলকাতাকে জেতালেন রিঙ্কু

ইডেনে সোমবার রাতে অনুষ্ঠিত আইপিএল ম্যাচে পঞ্জাব কিংসের ৭ উইকেটে ১৭৯ রানের জবাবে ব্যাট করতে নেমে কলকাতা নাইট রাইডার্স শেষ ওভারে চাপে পড়ে যায়।

এ সময় আবারও দলের ত্রাণকর্তা হিসেবে নিজেকে মেলে ধরেন রিঙ্কু সিং। শেষ বলে চার মেরে ম্যাচ জেতান কলকাতাকে। নাইট রাইডার্স ২০ ওভারে ৫ উইকেটের বিনিময়ে ১৮২ রান তুলে ম্যাচ জেতে।

ইডেনে পঞ্জাব কিংসের বিরুদ্ধে কেকেআর শেষ বলের থ্রিলারে জিতে ওঠার পরে তাই ক্যাপ্টেন নিতিশ রানার গলায় অকৃত্রিম আবেগ ঝরে পড়ল রিঙ্কু ও রাসেলকে নিয়ে।

রানা স্পষ্ট জানান, দীর্ঘদিন তিনি কেকেআর শিবিরের সঙ্গে যুক্ত রয়েছেন। তাই ইডেনের গ্যালারির রাসেল-রাসেল চিৎকার শুনে আপ্লুত হওয়া অভ্যাসে পরিণত হয়েছে তার। এবার যখন সমর্থকরা রাসেলের পাশাপাশি রিঙ্কু-রিঙ্কু বলে চিৎকার করে, অনাবিল আনন্দ অনুভব করেন।

রানা বলেন, ‘আমি ওকে (রিঙ্কুকে) বলি, নিজের ওপর বিশ্বাস রাখ। তুই যে কাজ করে দেখিয়েছিস (৫টি ছক্কায় ম্যাচ জেতানো), বহু বহু ক্রিকেটার কখনও করে দেখাতে পারবে না। তুই যখন ওই কাজটা করতে পেরেছিস, তাহলে তোর পক্ষে সব সম্ভব।’

নাইট দলনায়ক আরও বলেন, ‘ও যখন ব্যাট করছিল, দর্শকরা রিঙ্কু-রিঙ্কু বলে চিৎকার করছিল। আমার মতে এবছর ও এটা অর্জন করে নিয়েছে। গ্যালারির ওই চিৎকার শুনে আমার গায়ে কাঁটা দেয়। ৬ বছর হয়ে গেল কেকেআরের হয়ে খেলছি।

আগে যখন ইডেনের গ্যালারিকে রাসেল-রাসেল বলে চিৎকার করতে শুনতাম, ভালো লাগত। কেননা আমরা জানতাম রাসেল অনেক কিছু করেছে। এখন রাসেলের পাশাপাশি দর্শকরা যখন রিঙ্কু-রিঙ্কু বলে গলা ফাটায়, আমার ভীষণ ভালো লাগে।’

রাসেলকে নিয়ে রানা বলেন, ‘১০টা ম্যাচ হয়ে গিয়েছিল, আমরা অপেক্ষা করছিলাম রাসেলের ব্যাটে বড় ইনিংস কখন আসবে। কেননা আমরা জানি যে রাসেলের মতো ব্যাটসম্যানের থেকে বড় রান কেবল একটা ইনিংস দূরে। গত ৮-৯ ম্যাচ ধরে আমি ওকে এই কথাটাই বলছি। আজ ও সেটা করে দেখায় এবং আমাদের ২ পয়েন্ট এনে দেয়।’

দলকে জেতাতে রিঙ্কু করেন ১০ বলে ২১ রান আর রাসেল করেন ২৩ বলে ৪২ রান।

amazing)

About admin

Check Also

সালমা ইসলাম ঢাকা জেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি পুনর্নির্বাচিত

জাতীয় পার্টির কো-চেয়ারম্যান ও জাতীয় মহিলা পার্টির সভাপতি সাবেক প্রতিমন্ত্রী অ্যাডভোকেট সালমা ইসলাম এমপি ঢাকা …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *