Homeআয় উন্নতিপাখি পেলে সংসারে আয় উন্নতি করুন

পাখি পেলে সংসারে আয় উন্নতি করুন

আয় এর অন্যতম উৎস পাখি পালন।সংসারে আয় রোজগারের জন্য চেষ্টার কোন ত্রুটি থাকে না,একটুখানি আই এর উৎস
যেন মাঝে মাঝে স্বাবলম্বী করে তোলে। তেমনি একটি বিষয় হলো পাখি পালন!আমরা হাঁস-মুরগি গরু-ছাগল পালনের পাশাপাশি বিভিন্ন প্রজাতির খাঁচার পাখি পালন করে
সংসারে আয় উন্নতি করতে পারি।সে জন্য প্রয়োজন আপনার একান্ত নিষ্ঠা এবং ইচ্ছাশক্তি।

বিভিন্ন প্রজাতিন পাখির মধ্যে রয়েছে—

লাভ বার্ড, বাজিগর, জাভা, ককাটেল্‌ ফিঞ্চ, ইন্ডিয়ান টিয়া,অস্ট্রেলিয়া ঘুঘু এই গুলা উল্লেকযোগ্য

পালন পদ্ধতি-
১.লাভ বার্ড- শরীল জুড়ে তার বিভিন্ন রঙ এর সমাহার। বাকানো ঠোট, স্বচ্ছ চোখ, অপরুপ সসুন্দর ইত্যাদি বৈশিষ্ট্য লাভ বার্ডের। এর আদি নিবাস আফ্রিকাতে। লাভ বার্ড বিভিন্ন প্রজাতির হয়ে থাকে।
লুটিনো পিচ ফেস, পিচ ফেস রোজী, হোয়াইট ফেস ভায়োলেট, ইয়েলো ফিসার, ল, অলিভ ফিসার ইত্যাদি প্রজাতির লাভ বার্ড বাংলাদেশে পাওয়া যায়। প্রজাতি ভেদে দাম ভিন্ন রকম।
৩৫০০ টাকা থেকে লক্ষাধিক টাকার লাভ বার্ড বাংলাদেশে পাওয়া যায়। ডিম পাড়ার উপযুক্ত সময় শীতসিতকা৫ থেকে ৬টিঁ ডিম পারে।
সিড মিক্স লাভ বার্ড খেতে পছন্দ করে। চিনা, কাউন, সূর্যমুখীর বীজ, কুসুম ফুলের বীজ ইত্যাদি পরিমান মত মিশালে সিড মিক্স তৈরী হয়। ।
শাক সবজি ফলমূল লাভ বার্ড খেয়ে থাকে। অর্থনীতিকভাবে লাভ বার্ড পালন লাভ জনক। লাভ পালনের জন্য বাংলাদেশ খুব ভালো পরিবেশ। লাভ বার্ডের সবচেয়ে বড় সুবিধা হল,
এই পাখির অসুখ বিসুখ হয়। সবাই অনায়াসে লাভবার্ড পালন করতে পারে। ভাল পরিমান টাকা লাভবার্ড পালনের খামার এর মাধ্যমে আসতে পারে।

২.বাজিগর-
বাজিগর পাখির বৈজ্ঞানিক নাম আনুডুলেটাস ।বাজিগর পাখির আদি নিবাস অস্ট্রেলিয়া, এ পাখি দেখতে অনেকটা টিয়া পাখির মতন! বাজিগর নানা প্রজাতির হয়ে থাকে
ওয়েলকিন, ইয়োলো ডাবল, গোল্ডেন ফিস, ডাবল ফ্যাক্টর, রেইনবো, জাপানিস কেস্টেড।সাধারণত ১ জোড়া বাজেরিগার পাখির জন্য কমপক্ষে ১৮-১৮″
ব্রিডিং উপযোগী খাঁচার দাম ৩৫০-৪৫০ টাকা, তবে খাঁচার কোয়ালিটির উপর নির্ভর করে।
এই পাখির দাম 450 থেকে লক্ষাধিক টাকা।
এরা একেবারে 6 থেকে 10 টি ডিম দিয়ে থাকে! বাংলাদেশ তরুণের কাছে বাজিগর পাখি খুবই জনপ্রিয়। এই পাখির চাহিদা বাজারে অন্যান্য পাখির থেকে তুলনামূলক বেশি!
50% পখির খামারিরা বাজিগরককে বাণিজ্যিক খামার হিসেবে রূপ দিয়েছে । এর সধারন্ চিনা, কাউন, সূর্যমুখীর বীজ, কুসুম ফুলের বীজ খেয়ে থাকে।
এই পাখির রোগ বালাই খুবই কম।অসুস্থ হলে চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী ওষুধ প্রদান করতে হবে

৩. জাভাঃ
সৌখিন পাখি পালনের কাছে জাভা অত্যন্ত পরিচিত একটি পাখি জাভা পাখি। পালন এবং পদ্ধতি তুলনামূলক অন্যান্য পাখির থেকে সহজ! তবে সঠিক যত্নের অভাবে পাখিগুলো অসুস্থ হয়ে পড়ে বেশি।জাভা
পাখি প্রাপ্তবয়স্ক হতে সাধারণত পাঁচ থেকে ছয় মাস সময় লাগে। জাভা পাখির খাঁচার জন্য মুলত 18/12 ইঞ্চি সাইজের খাঁচা প্রযোজ্য। এই পাখির বব্রিডিং এর জন্য খাচাই একটি হাড়ি দিতে হয়।
জাভা পাখির খাবার জাভা পাখি পালন পদ্ধতি তে খাবার অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে।
জাভা পাখি মূলত খাদ্য বিজ খেয়ে থাকে, চিনা কাউন ধান সবচাইতে বেশি খেয়ে থাকে ।জাভা পাখিকে সপ্তাহে অন্তত দুই দিন রোদে দিতে হবে!এতে পাখির দেহে সুস্থ স্বাভাবিক থাকে,
অসুস্থ হলে চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী ব্যবস্থা নিতে হবে। জাভা পাখির দাম ৩৫০০ থেকে 6000 টাকা হয়ে থাকে। জাভা
পাখি বাজারের চাহিদা অনুযায়ী ভালো একটি উৎস হয়ে দাঁড়ায় ।তরুণদের মধ্যে জাভা পাখি পালনের উৎসাহতা দিন দিন বাড়ছে।

৪.ফিঞ্চঃ
পাখি জগতের মধ্যে সবচাইতে ছোট, দেখতে চড়ুই পাখির মত! তার নাম হলো ফিঞ্চ । আদিনিবাস অস্ট্রেলিয়া ! ফিঞ্চ পাখির প্রজনন করানো খুবই সহজ,
এবং অর্থনৈতিকভাবে খুবই লাভজনক। বাংলাদেশের অসংখ্য স্কুল-কলেজের ছাত্রছাত্রীরা ফিঞ্চ পাখি পালন করছেন ।
ফিঞ্চ পাখি নানা প্রজাতির হয়ে থাকে,
তারমধ্যে লংটেল, জেব্রা্‌,গোল্ডিয়ান! অন্যতম ।এই পাখি 6 থেকে 9 মাস বয়সে ডিম দিয়ে থাকে ,পাখি সাধারণত ৩ থেকে 12 টি ডিম দিয়ে থাকে
এই পাখির খাবার সিডমিক্স প্রিয়।পাশাপাশি শাকসবজি,চিনা কামন ইত্যাদি খেয়ে থাকে। প্রোটিনের জন্য পিঁপড়ের ডিম খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে।

৫. ককাটেল্ঃ
ককাটেল অত্যন্ত চুপচাপ স্বভাবের পাখি। মানুষের সাথে খুব সহজেই মিশতে পারে! এই পাখি দেখতে অনেক আকর্ষনীয় এর মাথার জুটির জন্য!
বিভিন্ন প্রজাতির ককাটেল আছে ! যেমন পাল ,লুটিনো,হোয়াইট ইতাদি।
প্রজনন ক্ষমতা অনেক বেশি,এরা ছয়টা থেকে দশটা পর্যন্ত ডিম দিয়ে থাকে। এ পাখির বাজার মূল্য ভালো।
এক জোড়া কোকাটেল 35০০ থেকে 5০০০ হাজার টাকায় বিক্রি হয়ে থাকে ।ককাটেল এর পেছনে শ্রম দিলে
একটি ভালো পরিমাণ উপার্জন করা সম্ভব বলে খামারি রা মনে করে।

পাখি পালন করে অনেক ছাত্রছাত্রী বা বেকার যুবক স্বাবলম্বী হচ্ছে ।কিছুদিন আগে যা ভাবাই যেত না তা এখন সম্ভব হচ্ছ।
বাংলাদেশ সরকার এই খাত কে উন্নতি করার লক্ষে নানা মুখি কার্যক্রম হাতে নিচ্ছে

RELATED ARTICLES

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Most Popular

Recent Comments