Breaking News

বাঁচার জন্য হাত বাড়ালেও মেয়েটিকে সাহায্য করেনি কেউ, উল্টো ভিডিও করছিল সবাই

বাঁচার জন্য হাত বাড়িয়ে সবার কাছে সাহায্য চেয়েছিল মেয়েটি, কিন্তু তাকে সাহায্যের জন্য এগিয়ে আসেনি কেউই, উল্টো এ ঘটনাটি নিজের মুঠোফোনে ধারণ করতে রীতিমতো ব্যস্ত হয়ে পড়েন উৎসুক জনতা। সম্প্রতি এমনটি একটি অমানবিক ঘটনা ঘটেছে ভারতের উত্তর প্রদেশের কনৌজের। এ ঘটনায় গোটা এলাকাজুড়ে বেশ চাঞ্চল্য দেখা দিয়েছে।

এনডিটিভি জানায়, একটি সরকারি গেস্ট হাউসের কাছে একটি এলাকায় মেয়েটিকে আ’হত অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখা গেছে। তার মাথায় একাধি’ক আ”ঘা’তে”র ‘চিহ্ন ছিল। জানা যায়, রবিবার মেয়েটি বাড়ি থেকে বের হয়ে যাওয়ার পর তার খোঁজ পায়নি পরিবার।
আহত মেয়েটি তার র”ক্ত’মা”’খা ‘হাত তুলে সাহায্যের জন্য অনুরোধ করলেও তাকে কেউ সাহায্য তো করেনি উল্টো তাকে ঘিরে ভিডিও ধারণ করতে ব্যস্ত হয়ে পড়েন সকলেই।

সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়া ২৫ সেকেন্ডের একটি ভিডিওতে একজনকে প্রশ্ন করতে দেখা যায় যে পুলিশকে জানানো হয়েছিল কিনা। আরেকজনকে স্থানীয় পুলিশ প্রধানের নম্বর চাইতে শোনা যায়। কিন্তু কেউ মেয়েটিকে হাসপাতালে নেওয়ার চেষ্টা করেনি। বরং তাদের ভিডিও রেকর্ডিং চলতে থাকে।
ফলে পুলিশ না আসা পর্যন্ত মেয়েটি আহত অবস্থায় পরে থাকে।

অন্য একটি ভিডিওতে পুলিশ এসে মেয়েটিকে একটি অটোরিকশায় তুলে নিয়ে যায়। স্থানীয় পুলিশ সুপার অনুপম সিং এক বিবৃতিতে বলেছেন, “মেয়েটিকে আ’হ’ত অবস্থায় উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।”
আরেক পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, মেয়েটি মাটির ব্যাংক কিনতে বাড়ি থেকে বেরিয়েছিল, এরপর আর বাড়ি ফেরেনি। পরে গেস্টহাউসের নিরাপত্তাকর্মীরা প্রথমে তাকে আহত অবস্থায় দেখতে পান।
পুলিশ সুপার আরও জানান, গেস্ট হাউসের সিসিটিভি ক্যামেরায় ওই তরুণীর সঙ্গে এক যুবককে দেখা গেছে।
তবে মেয়ের সঙ্গে অনৈতিক কোনো কাজ করা হয়েছে কিনা, এ ব্যাপারে এখনো কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি। তবে ভুক্তভুগি ওই মেয়ের পরিবারের অভিযোগে স্থানীয় থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। এ ঘটনায় এখনো কাউকে গ্রেপ্তার করা হয়নি বলে জানা গেছে।

About admin

Check Also

নববধূরাও পালায়, বাধ্য হয়ে পুরুষরা বউ ছাড়াই থাকেন

ভারতের মহারাষ্ট্রের নাসিক জেলার সুরগানা তালুকের ছোট গ্রাম দান্ডিচি বারি। সারাগ্রামে সবমিলিয়ে ৩০০ জনের বসবাস। …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *