ইউক্রেনের ৪ অঞ্চলের জনতার রাশিয়ার সঙ্গে যুক্ত হওয়ার পক্ষে রায়

রুশ বাহিনী–নিয়ন্ত্রিত ইউক্রেনের চারটি অঞ্চলের গণভোটে রাশিয়ার সঙ্গে যুক্ত হওয়ার পক্ষে ব্যাপক সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাওয়া গেছে। গণভোট থেকে প্রাপ্ত আংশিক ফলাফলে ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছে যে ব্যাপক সংখ্যক মানুষ রাশিয়ায় যোগ দেবার পক্ষে মত দিয়েছে।

যুদ্ধ-বিধ্বস্ত এসব অঞ্চলে প্রায় ৪০ লাখ মানুষকে ভোট দেবার আহবান জানানো হয়েছিল। এ চারটি অঞ্চল ইউক্রেনের মোট ভূমির প্রায় ১৫ শতাংশ। সেগুলো হলো পূর্বাঞ্চলীয় ডোনেৎস্ক ও লুহানস্ক এবং দক্ষিণাঞ্চলের জাপরোজজিয়া ও খেরসন। এ চার অঞ্চল ইউক্রেনের গোটা ভূখণ্ডের প্রায় ১৫ শতাংশ। লুহানস্ক কর্তৃপক্ষ বলেছে, ৯৮ দশমিক ৪ শতাংশ ভোটার রাশিয়ায় যুক্ত হওয়ার পক্ষে ভোট দিয়েছেন। জাপরোজজিয়ায় রাশিয়ার নিয়োগ করা প্রশাসন জানিয়েছে, রাশিয়ার সঙ্গে যুক্ত হওয়ার পক্ষে ৯৩ দশমিক ১ শতাংশ ভোটার।

খেরসনে ভোট গ্রহণ কমিটির প্রধান বলেছেন, রাশিয়ায় যুক্ত হওয়ার পক্ষে ভোট পড়েছে প্রায় ৮৭ শতাংশ। স্বঘোষিত ডোনেৎস্ক পিপলস রিপাবলিকের প্রধান ডেনিস পুশিলিন বলেছেন, ওই অঞ্চলের ৯৯ দশমিক ২ শতাংশ ভোটারই রাশিয়ায় যোগ দেওয়ার পক্ষে ভোট দিয়েছেন। চারটি অঞ্চলের সব ভোট গণনা করা হয়েছে। এসব অঞ্চলের বাস্তুচ্যুত লোকজন রাশিয়ায় ভোট দেওয়ার সুযোগ পেয়েছেন। রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা আরআইএ প্রাথমিক গণনার বরাত দিয়ে জানিয়েছে, ৯৬ শতাংশের বেশি ভোটার মস্কোর শাসনাধীনে যাওয়ার পক্ষে রায় দিয়েছেন।

ধারণা করা হচ্ছে, প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন শুক্রবার রাশিয়ার পার্লামেন্টে-এর এক যৌথ অধিবেশনে এ চারটি অঞ্চলকে রাশিয়ার অংশ করে নেবার ঘোষণা দেবেন। দুই হাজার চৌদ্দ সালের মার্চ মাসে একই ধরণের একটি গণভোটের আয়োজন মাধ্যমে পুতিন ক্রিমিয়াকে রাশিয়ার অংশ করে নেয়া হয়েছিল। পাঁচ দিনের গণভোটের পর এ ফলাফলের কথা জানানো হয়। ইউক্রেন ও দেশটির মিত্র পশ্চিমা দেশগুলো এই গণভোটকে প্রহসন আখ্যা দিয়েছে।

গত সপ্তাহে পুতিন ঘোষণা দিয়ে রেখেছেন, রাশিয়ার ভূখণ্ডগত অখণ্ডতা রক্ষায় দেশটির কাছে থাকা সব ধরনের উপায় প্রয়োগ করবেন তিনি। এই ঘোষণার মধ্য দিয়ে কার্যত তিনি পারমাণবিক বোমা হামলার হুমকি দিয়ে রেখেছেন। পুতিনের মিত্র সাবেক প্রেসিডেন্ট দিমিত্রি মেদভেদেভ গণভোটের ফলাফলে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেছেন। বর্তমানে রাশিয়ার নিরাপত্তা পরিষদের ডেপুটি চেয়ারম্যানের পদে থাকা মেদভেদেভ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম টেলিগ্রামে পোস্ট করা এক বার্তায় বলেছেন, ‘গণভোট শেষ। ফলাফল সুস্পষ্ট। নিজ আবাস রাশিয়ায় স্বাগত!’
এদিকে এসব ভূখণ্ডকে যুক্ত করার বিষয়ে রাশিয়ার প্রতি বারবার সতর্কতা উচ্চারণ করে ইউক্রেন বলেছে, এ ধরনের পদক্ষেপ শান্তি আলোচনার যেকোনো সুযোগ ধ্বংস করবে। এই গণভোট আয়োজনে যেসব ইউক্রেনীয় রাশিয়াকে সহযোগিতা করেছেন, তাঁদের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহের অভিযোগ আনা হবে।

ইউক্রেনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী দিমিত্রো কুলেবা ইউরোপীয় ইউনিয়নকে আহবান জানিয়েছে যাতে রাশিয়ার উপর আরো কঠোর নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়।
গণভোট নিয়ে একজন সাংবাদিকের প্রশ্নের জবাবে চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রনালের মুখপাত্র ওয়াং ওয়েনবিন বলেন, সব দেশের সার্বভৌমত্ব এবং অখণ্ডতাকে অবশ্যই সম্মান করতে হবে। এই গণভোটকে সমর্থন জানিয়ে প্রেসিডেন্ট পুতিন বলেছেন, এসব অঞ্চলে বসবাসরত জাতিগত রাশিয়ান এবং রাশিয়ান ভাষাভাষী জনগণের উপর দমন-পীড়ন বন্ধ করার জন্য এই আয়োজন করা হয়েছে। সূত্র: বিবিসি, ব্লুমবার্গ।

About admin

Check Also

১৯১ অনলাইন নিউজ পোর্টাল বন্ধে চিঠি দেয়া হয়েছে : তথ্যমন্ত্রী

১৯১টি অনলাইন নিউজ পোর্টালের লিংক বন্ধে ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগে চিঠি পাঠানো হয়েছে বলে জানিয়েছেন …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *