এসকল নেতা নেত্রীদের জায়গা হবে বঙ্গোপসাগরে, আমরা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর বেপরোয়া সদস্যদের তালিকাও করছি: টুকু

র্তমানে  সারাবাংলা দ্রব্যমূল্য  ঊর্ধ্বগতির  দিকে।  এমতাবস্থায়  বিপাকে মধ্যবিত্ত ও হতদরিদ্র মানুষেরা। এসকল বিষয় নিয়ে বিগত বেশ  কয়েক মাস ধরে বিএনপিসহ  বিরোধী দলের নেতারা বিক্ষোভ সমাবেশের আয়োজন করে আসছে।  এমনই একটি অনুষ্ঠানে বক্তব্য দিয়ে বর্তমানে আলোচনা শীর্ষস্থানে রয়েছেন যুবদলের সভাপতি সুলতান সালাউদ্দিন টুকু। দুর্নীতিবাজ সরকারের নেতা-নেত্রীদের জায়গা হবে বঙ্গোপসাগরে বলে মন্তব্য করেছেন তিনি। গতকাল বিকেলে সিলেটের রেজিস্ট্রি মাঠে যুবদলের বিভাগীয় যুব সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন। সারাদেশে দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি, গুম ও সিলেট জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক মাকসুদ আহমদের মুক্তির দাবিতে এ সমাবেশের আয়োজন করা হয়।

সিলেট জেলা ও মহানগর যুবদল আয়োজিত এ বিভাগীয় সভায় সভাপতিত্ব করেন সিলেট জেলা যুবদলের সভাপতি অ্যাডভোকেট মুমিনুল ইসলাম মুমিন। সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে টুকু আরো বলেন, এ সরকার অবৈধ সরকার। বিরোধী শক্তিকে জবরদস্তি ও দমন করে ক্ষমতায় থাকে। এই সরকার জনগণকে যে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল তার একটিও পূরণ করেনি। এর বাইরে লুটপাট করে দেশকে ধ্বংস করা হয়েছে। তবে বেশি দিন নয়- আল্লাহর রহমতে এই সরকারের পতন হবে। কারণ জুলুম করে কেউ ক্ষমতায় থাকতে পারেনি।সুলতান সালাহউদ্দিন টুকু আরও বলেন, দেশের আইনশৃঙ্খলা বাহিনী এখন সরকারের নিজস্ব বাহিনীতে পরিণত হয়েছে।

এ কারণে বহির্বিশ্বে এদেশের বিভিন্ন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কোনো সম্মান নেই। আমরা আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর বেপরোয়া সদস্যদের তালিকাও করছি। বিএনপি ক্ষমতায় এলে তাদের বিচার হবে। বিভাগীয় সমাবেশকে ঘিরে সিলেট যুবদলের নেতাকর্মীদের মধ্যে ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনা সৃষ্টি হয়। সকাল থেকেই বিভিন্ন স্থান থেকে যুবদলের নেতাকর্মীরা মিছিল নিয়ে রেজিস্ট্রি মাঠে জড়ো হন।

সমাবেশে বিশেষ অতিথি ছিলেন সিলেট মহানগর যুবদলের সাধারণ সম্পাদক মির্জা সম্রাট, যুবদলের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মোনায়েম মুন্না, সিলেট জেলা বিএনপির সভাপতি আব্দুল কাইয়ুম চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট এমরান আহমদ চৌধুরী, জেলা যুবদলের সাবেক আহবায়ক সিদ্দিকুর রহমান পাপলু, মহানগর সাবেক সাধারণ সম্পাদক মো. বিশেষ অতিথি ছিলেন আহবায়ক নজিবুর রহমান প্রমুখ।জ্বালানি তেল ও দ্রব্যমূল্যের দাম বৃদ্ধি নিয়ে বিগত বেশ কয়েক মাস ধরে আন্দোলন ও প্রতিবাদ সমাবেশের আয়োজন করে আসছে বিএনপি।

তারা চায় এই আন্দোলনের মুখে বর্তমান সরকারকে ক্ষমতাচ্যুত করতে। এই আন্দোলন ও বিক্ষোভ সমাবেশ  পুলিশের সাথে বহুবার মুখোমুখি সংঘর্ষ হওয়ার পরেও কোনভাবেই তারা রাজপথ ছাড়তে চায় না বলেও জানিয়েছেন বিএনপি’র নেতারা।

About admin

Check Also

ওবায়দুল কাদেরের উদ্বোধনী বক্তব্যের সময় হঠাৎ গোলাগুলি, হাসপাতালেএকজন

শুধু বিরোধী দলই নয়, বর্তমান ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সম্মেলনকে ঘিরেও ঘটছে নানা অপ্রত্যাশিত কাণ্ড। আর …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *