Breaking News

মুসলমান থেকে হিন্দু হয়ে যাওয়া অধিকাংশই আবার ফিরে গেছে ইসলাম ধর্মে

হিন্দু ধর্ম কেন নিয়েছিল এই পরিবারটি?

দিলশাদের পরিবারের ১৩ জন সদস্য ২০১৮ সালে মুসলমান থেকে হিন্দু হয়ে গিয়েছিলেন। এর মধ্যে তারা তিন ভাই – নওশাদ, দিলশাদ আর ইরশাদ ছাড়াও তাদের স্ত্রী আর সন্তানরাও ছিলেন।

এদের বাবা আখতার আলি ও তার স্ত্রীও হিন্দু হয়ে গিয়েছিলেন।

সেই সময়ে এদের অভিযোগ ছিল যে প্রয়োজনের সময়ে মুসলমান সমাজ তাদের পাশে এসে দাঁড়ায় নি। তাই ইসলাম ধর্ম ত্যাগ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন তারা।

যে সময়ে পরিবারটি হিন্দু ধর্ম গ্রহণ করেছিল, তখন জোয়ার বয়স ছিল মাত্র ছয় মাস।

নওশাদ রাজমিস্ত্রির কাজ করেন। দিলশাদ গ্রামে ঘুরে ঘুরে পোশাক বিক্রি করেন। আর ইরশাদ কাপড় ফেরি করেন। এদের বাবাও একই কাজ করেন, কিন্তু বয়সের কারণে এখন আর তিনি রোজগারের জন্য বেরুতে পারেন না।

‘মুসলমানরা পাশে দাঁড়ায় নি’
আখতার আলির ছোট ছেলে গুলশানের মৃতদেহ সন্দেহজনক অবস্থায় পাওয়া গিয়েছিল ২০১৮ সালে। মি. আলির কথায়, ছেলেকে খুন করা হয়েছিল। সেই ঘটনার সময়ে নিজের ধর্মের মানুষ পরিবারের পাশে দাঁড়ায় নি।

কিন্তু ‘যুবা হিন্দু বাহিনী’ সেই সময়ে খুব সাহায্য করেছিল। তারপরেই পরিবারটি সিদ্ধান্ত নেয় যে তারা হিন্দু ধর্ম গ্রহণ করবে।

ধর্ম বদলের পরে গ্রামেরই জগবীর সিংয়ের বাড়িতে ভাড়া থাকতে শুরু করে আখতার আলির পরিবার।

তবে তাদের হিন্দু হয়ে ওঠার সময়টা খুব বেশিদিন টেকে নি। পরিবারের নারী সদস্যরা গোড়া থেকেই হিন্দু ধর্ম গ্রহণ করতে নারাজ ছিলেন।

নওশাদের সংসার ভেঙ্গে যায়
হিন্দু হয়ে যাওয়ার পরে নওশাদের স্ত্রী নিজের মায়ের কাছে ফিরে গেছেন। তিনি বলেছিলেন, হিন্দু হয়ে যাওয়ার পরে তাদের বিয়ের তো আর কোনও অস্তিত্বই নেই, তাই তিনি আর ফিরে আসবেন না।

নওশাদ বলছিলেন যে তার পক্ষে একা থাকা খুব কঠিন হয়ে উঠেছিল। বাচ্চারাও তাদের মায়ের সঙ্গেই চলে গিয়েছিল।

হিন্দু হয়ে কী লাভ হল?
দু’মাস পরে নওশাদ আবারও ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেন – আর তার ছেড়ে যাওয়া স্ত্রীকেই আবারও বিয়ে করেন।হিন্দু ধর্ম নেওয়ার পরে ইরশাদ নিজের নাম রেখেছিলেন কবি।

তিনি বলছিলেন, “যা ভেবে হিন্দু হয়েছিলাম, তার তো কিছুই পাই নি। সুবিচার পাওয়ার আশায় হিন্দু ধর্ম গ্রহণ করেছিলাম। কিন্তু এখানে কিছুই পাই নি।”

“হিন্দু তো হয়ে গিয়েছিলাম। কিন্তু আত্মীয় স্বজন সবাই তো মুসলমান। হিন্দু হওয়ার পরে আমাদের দিক থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছিল সবাই। কেউ আমাদের ফোন পর্যন্ত ধরত না।”

“অন্যদিকে হিন্দুদের মধ্যে আবার জাতপাতের ভেদাভেদ আছে। হিন্দু তো হয়েছিলাম, কিন্তু জাতি কী হবে আমাদের! আর জাতি ঠিক না হলে বিয়ে-শাদি কী করে হবে? আমার মনে হচ্ছিল যেন নিজেদের পায়েই কুড়ুল মেরেছি আমরা,” জানাচ্ছিলেন ইরশাদ।

‘জানতাম হিন্দু সমাজ মেনে নেবে না’
আখতার আলির পরিবারের বড় বউ শাবরা খাতুনের কথায়, “আমি জানতাম যে কোনও হিন্দু আমাদের মেনে নেবে না। তাই আমি ঠিক করে নিয়েছিলাম যতই সমস্যা হোক আমি হিন্দু হব না। আমার সন্তানদের কে বিয়ে করবে? আর হিন্দু হলেই আমি তো আর ব্রাহ্মণ হয়ে যাব না। দলিতই তো থাকতে হবে। তাই কেন অকারণে আমি ছোঁয়াছুঁয়িয়ের মতো ব্যাপারে জড়াব! দেখুন, মুসলমান হওয়া সোজা। কিন্তু হিন্দু হয়েও পুরনো জীবন থেকে কি আপনি মুক্ত হতে পারবেন?”

আখতার আলির পুরো পরিবারই তাই আবারও মুসলমান হয়ে গেছেন। শুধুমাত্র দিলশাদই এখনও হিন্দু থেকে গেছেন।

২০১৮ সালে নিজের নাম দিলের সিং রেখেছিলেন, আর পাঁচ সন্তানেরও হিন্দু নাম রেখেছেন। স্ত্রীর নাম পালটিয়ে করেছেন মঞ্জু।

দিলের সিং তো গত চার বছর ধরে হিন্দু ধর্ম পালন করছেন। তাতে কি তার কোনও লাভ হয়েছে?

এই প্রশ্নের জবাবে তিনি বেশ কিছুক্ষণ চুপ করে রইলেন। তারপরে বললেন, “কী লাভের আশা করেছিলাম? কিছু তো পাওয়া যায় পরিশ্রম দিয়ে।”

“শুধু একটাই পাওয়া যে গ্রামের হিন্দুরা আমাদের সাহায্য করেছে। জয়বীর সিং থাকার জন্য ঘর দিয়েছিলেন। আমার ভাইরা তো আবারও মুসলমান হয়ে গেছে, কিন্তু তাদের বাড়ি থেকে বার করে দেন নি উনি।”

হিন্দুরা কী বলছে?
বাড়িওয়ালা জয়বীর সিংয়ের পরিবারের সদস্য সুখবীর সিং বলছেন, “এদের তো ঘর ভাড়া দিয়েছিলাম এজন্য নয় যে তারা হিন্দু হয়ে গেছে। ঘর খালি ছিল, আর বাড়িতে লোক থাকলে ঘরদোর পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন থাকবে – এই জন্যই ভাড়া দেওয়া হয়েছিল। এরা কে কোন ধর্মে থাকবেন, সেটা তাদের ব্যাপার। আমাদের বিচার্য নয় সেটা।”

তিনি আরও বলছিলেন, “দেখুন, হিন্দু থেকে মুসলমান হওয়া সোজা, কিন্তু মুসলমান থেকে হিন্দু হয়ে ওঠা কঠিন। হিন্দু সমাজে জাতপাত এখনও খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এখনও নিজের জাতের মধ্যেই বিয়ে-শাদি হয়। কেউ মুসলমান থেকে হিন্দু হলেও কোন জাতি তাকে গ্রহণ করবে? জাত তো জন্মগত বিষয়। জাত তো আর নিজের পছন্দ মতো বেছে নেওয়া যায় না।”

“মনে করুন এরা আমাদের জাত – জাঠ হতে চান। কিন্তু কোন জাঠ এদের স্বীকার করে নেবেন?
কেন ইসলামে ফিরে গেল পরিবারটি?
আখতার আলির পরিবারকে হিন্দু ধর্ম গ্রহণ করতে সহায়তা করেছিলেন ‘যুবা হিন্দু বাহিনী’র বাগপত জেলা প্রেসিডেন্ট যোগেন্দ্র তোমর।

তার কাছে জানতে চেয়েছিলাম যে পরিবারটি কেন আবারও ইসলাম ধর্মে ফিরে গেল?

“তাদের স্ত্রী-সন্তানরা বাড়ি ছেড়ে চলে গিয়েছিল। সেজন্যই তাদেরও ফিরে যেতে হয়েছে। কিন্তু আমরা চেষ্টা ছাড়ি নি। আমরা চাই সব মুসলমানই ঘরে ফিরে আসুক ধর্ম বদল করে।”

About admin

Check Also

পুলিশ বলল ‘নেই’, হাজতখানা থেকে স্বামী চিৎকার করে স্ত্রীকে বলল ‘আছি’

আইনজীবী এবং মানবাধিকারকর্মী আবুল হোসাইন রাজন। পুরান ঢাকার বাসা থেকে অফিসের উদ্দেশ্যে বের হয়েছিলেন ২২ …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *