Breaking News

হৃদয়বিদারক ঘটনা শুনিয়ে সবার হৃদয় কাড়লেন অস্ট্রেলিয়ার প্রথম হিজাবি সিনেটর ফাতিমা

অস্ট্রেলিয়ার প্রথম হিজাব পরা এমপি হওয়ার পথে ফাতিমা পেমানের যাত্রা শুরু হয় যখন বিশ্ববিদ্যালয়ের এক সহপাঠী তার মাথার স্কার্ফ নিয়ে উপহাস করে। শৈশবে আফগানিস্তান থেকে পালিয়ে অস্ট্রেলিয়ায় আসার পর থেকে টিউটোরিয়াল ক্লাসে বসার আগপর্যন্ত ফার্মাসির তরুণ ছাত্রীটি সবসময়ই গৃহীত বোধ করেছিল।

কয়েক বছর পর হিজাব পরা সিনেটর পেম্যান মঙ্গলবার রাতে সংসদে তার আবেগপূর্ণ প্রথম বক্তৃতায় তার মরহুম বাবাকে ধন্যবাদ জানিয়ে কান্নায় ভেঙে পড়েন। ২৭ বছর বয়সী সিনেটর পেম্যান বলেন, তার বাবা ‘চাকরির নিরাপত্তাহীনতা এবং কম মজুরির কারণে বৈষম্য ও অপব্যবহারের’ সম্মুখীন হয়েছেন, কিন্তু তার ত্যাগ তাকে সুখী শৈশব যাপন করতে দিয়েছে।
তিনি তার বক্তৃতায় বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয় টিউটোরিয়ালে এক যুবক যখন আমার হিজাবকে উপহাস করে তখন ‘অন্য’ বলে মনে করার আমার প্রথম অভিজ্ঞতায় আমি হোঁচট খেয়েছিলাম। ‘দেখুন, বড় হয়ে আমি কখনই আলাদা অনুভব করিনি। পার্থে যেতে যেতে বাড়ির মত মনে হয়েছে – কারণ বাড়ি যেখানে থাকে হৃদয় এবং আমার হৃদয় ছিল আমার পরিবারের সঙ্গে।
‘আমি আলাদা বা অদ্ভুত বোধ করিনি, আমি আর সব অসি বাচ্চার মতো অনুভব করেছি, পার্থের উত্তর শহরতলিতে বড় হয়েছি, বিশ্ববিদ্যালয়ে পাবলিক ট্রান্সপোর্ট ধরেছি এবং সমাজের একজন উৎপাদনশীল সদস্য হওয়ার আশা করেছি।
কিন্তু ‘আপনি যেখান থেকে এসেছেন সেখানে ফিরে যান’-এর মতো মন্তব্য বা চরমপন্থার অনুমান আমাকে এমন মনে করতে বাধ্য করেছে যে, আমি এর অন্তর্গত নই’।

সিনেটর পেম্যান বলেন, তার রাজনীতি, যুব নেতৃত্ব গোষ্ঠী, পুলিশ উপদেষ্টা গ্রæপ এবং মুসলিম ছাত্র সমিতিতে যোগদানের অনুঘটক ছিল এটি। তিনি বলেন, ‘আমি একটি পরিবর্তনের অংশ হওয়ার আশায় স্বেচ্ছাসেবা শুরু করেছি, যদি আমাকে সমাজে ভাল তা ছড়িয়ে দিতে দেখা যায়, তাহলে হয়তো আমাকে এ জাতির সমান সদস্য হিসাবে গ্রহণ করবে’।
‘একজন শরণার্থীর মেয়ে হিসেবে যে নিরাপদ এবং উন্নত ভবিষ্যতের স্বপ্ন নিয়ে এই দেশে এসেছিলাম, আমি নিজেকে সেই সাহস দিয়েছিলাম সিস্টেমকে চ্যালেঞ্জ করার এবং দেখতে… আমি কতটা পরিবর্তন শুরু করতে পারি’।
তবে, তিনি বলেন যে, অস্ট্রেলিয়ান রাজনীতি, এমনকি সিনেট চেম্বারও প্রায়শই জেনোফোবিয়া এবং বর্ণগত এবং ধর্মীয় ভয়ভীতিতে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। তিনি তার সহকর্মী সংসদ সদস্যদের গোঁড়ামি, বর্ণবাদ এবং বৈষম্য দূর করার জন্য চ্যালেঞ্জ করেন এবং এটিকে শুধু ঠোঁট পরিষেবা দেওয়ার জন্য নয়।
সিনেটর পেম্যান তার পরিবারকে একটি নতুন জীবন দেওয়ার জন্য অস্ট্রেলিয়ায় একটি রিকেট নৌকায় তার বাবার ১১ দিনের দুর্দশামূলক সমুদ্রযাত্রার নতুন বিবরণও শেয়ার করেছেন। তিনি বলেন, ‘উদ্বেগ এবং সন্দেহের তরঙ্গ আমার মায়ের চিন্তায় প্লাবিত হয়েছিল যখন তিনি অপেক্ষা করতেন এবং অপেক্ষা করতেন, আমার বাবার অস্ট্রেলিয়ায় নিরাপদে পৌঁছানোর কোনো খবরের জন্য। চার মাস পরে আমরা অবশেষে সুসংবাদ পেয়েছি’।

তালেবান ক্ষমতায় আসার পর পরিবারটি আফগানিস্তান থেকে পাকিস্তানে পালিয়ে গিয়েছিল, কারণ সিনেটর পেম্যানের দাদা পুরনো শাসনামলে সংসদ সদস্য ছিলেন। অভিবাসনে আটকে থাকার পর জনাব পেম্যান তার পরিবারকে পৃষ্ঠপোষকতার জন্য যথেষ্ট অর্থ সঞ্চয়ের লক্ষ্যে রান্নাঘরের কাজ, ট্যাক্সি ড্রাইভার এবং নিরাপত্তা প্রহরী হিসাবে কঠিন কাজ করেন।
ভবিষ্যতের সিনেটর ২০০৩ সালে তার মা এবং তিন ছোট ভাইবোনের সাথে আট বছর বয়সী মেয়ে হিসাবে অস্ট্রেলিয়ায় এসেছিলেন। তিনি পার্থের অস্ট্রেলিয়ান ইসলামিক কলেজের প্রধান গার্ল ছিলেন এবং ডাক্তার হওয়ার জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ে যান। ২০১৮ সালে ৪৭ বছর বয়সে লিউকেমিয়ায় মারা যান জনাব পেম্যান। ফলে তাকে সিনেটর হতে দেখতে পাননি। কিন্তু তার মৃত্যু তার মেয়েকে উচ্চ পদের জন্য দৌড়ানোর জন্য অনুপ্রাণিত করেছিল। তিনি গত ২৭ জুলাই ৪৭তম সংসদের প্রথম দিনে সংসদে তার প্রথম ভাষণে তাকে শ্রদ্ধা জানান, যেখানে তিনি আবেগে আপ্লুত হয়ে কাঁদেন।

তিনি তার বাবা সম্পর্কে বলেন, ‘যার আত্মত্যাগ কখনই ভোলা যাবে না এবং যাকে আমি খুব পছন্দ করি তার ছোট মেয়ে কতদূর এসেছে তা দেখাতে এখানে এসেছি’। মঙ্গলবার সিনেটর পেম্যান বলেছেন, অস্ট্রেলিয়ায় তাকে বড় করার জন্য তার বাবা-মাকে কর্মক্ষেত্রে সুবিধা পাওয়া দেখে তিনি লেবার পার্টিতে যোগ দিয়েছিলেন।

সিনেটর পেম্যান সিনেটে বলেন, ‘টেবিলে খাবার রাখতে, আমাদের শিক্ষার খরচ দিতে এবং আমাদের মাথার ওপর ছাদ দেওয়ার জন্য যে সংগ্রাম আমার বাবা-মা করেন তা আমি প্রত্যক্ষ করেছি’। বৈষম্য ও অপব্যবহার থেকে শুরু করে চাকরির নিরাপত্তাহীনতা এবং কম মজুরি, আমার বাবা অভিযোগ না করে বা ক্ষতিপূরণ না নিয়েই সেসব কষ্ট সহ্য করেছেন। অনেক কঠোর পরিশ্রমী অস্ট্রেলিয়ানদের মতো এটি আমার বাবা-মায়ের কাছে দ্বিতীয় প্রকৃতির মতো এসেছিল যারা কেবল তাদের চার সন্তানের জন্য সেরা ভবিষ্যত চেয়েছিলেন’।
প্রাক্তন ইউনিয়নবাদী অ-অ্যাংলো স¤প্রদায়ের আরো ভাল প্রতিনিধিত্ব নিশ্চিত করার প্রতিশ্রæতি দিয়েছিলেন, তার মাতৃভাষা দারিতে কথা বলতে গিয়ে মানুষের এক স¤প্রদায় হওয়ার বিষয়ে একটি কবিতা আবৃত্তি করেন।

প্রধানমন্ত্রী অ্যান্টনি আলবানিজ এবং প্রতিরক্ষামন্ত্রী রিচার্ড মার্লেস তার বক্তৃতা দেখার জন্য সিনেটে একটি বিশেষ পরিদর্শন করেন এবং পরে তাকে অভিনন্দন জানানো প্রথম ব্যক্তিদের মধ্যে ছিলেন। তিনি তার শৈশবকালীন শিক্ষামন্ত্রী অ্যান আলির সাথে একটি দীর্ঘ আলিঙ্গন শেয়ার করেছেন, যিনি একজন সহকর্মী, পশ্চিম অস্ট্রেলিয়ান মুসলিম এমপি এবং তার পরামর্শদাতা হিসাবে কাজ করেছিলেন। আলিঙ্গনের সময় তিনি বলেন, ‘আমি তোমাকে নিয়ে খুব গর্বিত’।

ওয়ান নেশন নেতার সাথে সিনেটর পেম্যানের কিছু মিল রয়েছে – তিনি প্রযুক্তিগতভাবে প্রথম ব্যক্তি যিনি সিনেটের ফ্লোরে ইসলামিক পোশাক পরেছিলেন। ২০১৭ সালে সিনেটর হ্যানসন অস্ট্রেলিয়ায় তাদের এবং বোরকা নিষিদ্ধ করার জন্য নাটকীয়ভাবে নিজেকে প্রকাশ করার আগে সিনেটে নেকাব পরেছিলেন। ২৭ বছর বয়সে, মিসেস পেম্যান হলেন সর্বকনিষ্ঠ সিনেটর এবং সিনেটের ইতিহাসে তৃতীয় সর্বকনিষ্ঠ। মেহরীন ফারুকী প্রথম অস্ট্রেলিয়ান মুসলিম সিনেটর, কিন্তু হিজাব পরেন না। সূত্র : ডেইলি মেইল।

About admin

Check Also

প্রধানমন্ত্রীর মহানুভবতায় চাকরি পেলেন পা হারানো ছাত্রলীগ নেতা মাসুদ

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মহানুভবতায় রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে চাকরি পেয়েছেন ছাত্রশিবিরের নৃশংস হামলায় পা হারানো ছাত্রলীগ নেতা …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *